Facebook SDK

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

 আসসালামু-অলাইকুম,যারা এখনো ভোটার হননি(বয়স ১৮ বছরের নিচে) বা জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য নিবন্ধন করেননি তারা নতুন নিয়মে নতুন ভোটার হওয়ার জন্য  নিবন্ধন করতে পারবেন। 

এর জন্য আপনাকে অনলাইনে নিবন্ধন করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যো উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে এপ্লিকেশন ফর্ম সহ প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস জমা  দিয়ে  ছবি এবং আজ্ঞুলের ছাপ ( বায়োমেট্রিক)  সম্পন্ন করে ভোটার হতে পারবেন।

যারা জাতীয় পরিচয়পত্র পেয়েছেন তারা সংশোধন / ডুপ্লিকেট কপির জন্য আবেদন করতে পারবেন, যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই তারা নতুন নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। যারা ইতিমধ্যে নিবন্ধন করেছেন কিন্তু জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি পান নি, তারা অ্যাকাউন্ট রেজিস্টার করে ডাউনলোড অপশন থেকে জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি সংগ্রহ করতে পারবেন।alert-info

নতুন ভোটার হওয়ার জন্য কি কি ডকুমেন্টস ( কাগজপত্র) লাগবে?
আপনাকে  বাংলাদেশী  নাগরীক ( বাংলাদেশে জন্মগ্রহণকারী) হতে হবে এবং  অনলাইনে আবেদন করার পর এপ্লিকেশন ফর্ম এর কপি সহ নিম্নলিখিত কাগজপত্র নিকটস্থ নির্বাচন অফিসে জমা দিবেনঃ
  • জন্ম সনদ/জন্ম নিবন্ধন, ( বয়স প্রমানের জন্য)
  • আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র,(যোগ্যতা প্রমানের জন্য)
  • পাসপোর্ট /ড্রাইভিং লাইসেন্স / ই-টিন ( যদি থাকে)
  • ইউটিলিটি বিলের রসিদ/হোল্ডিং ট্যাক্স রসিদ ( ঠিকানা প্রমানের জন্য)
  • বাবা,মা,স্বামী /স্ত্রীর আইডি কার্ডের ফটোকপি ( অবশ্যক)
  • নাগরিকত্ব সনদ ( অত্যাবশ্যক নয়)
  • আবেদন ফর্ম এর কপি।


নতুন ভোটার হতে কি কি যোগ্যতা থাকতে হবে?
  • বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে,
  • বয়স ১০ বছর এর কম নয়,
  • পূর্বে জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য নিবন্ধন করা হয়নি।

অনলাইনে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র ও ভোটার নিবন্ধন প্রক্রিয়ার ধাপ সমূহঃ


  • বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন এর ওয়েবাসাইটে একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশন, 
  • ব্যাক্তিগত তথ্য,ঠিকানা,যোগ্যতা প্রদান,
  • অনলাইনে আবেদন জমা,
  • ভেরিফিকেশ, 
  • বায়োমেট্রিক প্রদান,
  • জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি ডাওনলোড / নির্বাচন অফিস থেকে কার্ড সংগ্রহ।

  • আরো পড়ুনঃ জাতীয় পরিচয় পত্র হারিয়ে গেলে করণীয়
অনলাইনে কিভাবে নতুন জাতীয়পত্র/ভোটার নিবন্ধন করবো?
মনে রাখবেন, এখানে কোন প্রকার ভূল তথ্য প্রদান করলে পরে আপনাকে অনেক হয়রানি হতে হবে তাই নিজের তথ্য যেমনঃ জন্ম সনদ & শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ অনুযায়ী এবং বাবা, মায়ের তথ্য তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র অনুযায়ী দিবেন।

প্রথমেই  বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন এর ওয়েবাসাইটে একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশন করতে হবে-

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?


নিম্নে পূরো নাম, জন্ম তারিখ ( জন্ম সনদ অনুযায়ী)  এবং ক্যাপচা পূরন করে "বহাল" রাখুন।

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

এখানে মোবাইল নাম্বার দিয়ে "বার্তা পাঠান"

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

বার্তা পাঠানোর পর আপনার নাম্বারে যে ভেরিকেশন কোড আসবে সেটি পরবর্তী ধাপে বসাতে হবে তাই সংরক্ষন করুন।

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

যাচাইকরন কোড টি নিচে বসিয়ে "বহাল" রাখুন এ ক্লিক করুন।


কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?


নিচের ধাপে আপনাকে একটি ইউজারনেম (যেটি পূর্বে ব্যাবহার করা হয়নি) এবং একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যাবহার করে একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশনের কাজটি সম্পন্ন করতে হবে।

ইউজারনেম ইংরেজি নাম ও সংখ্যার মিশ্রনে দিবেন এবং পাসওয়ার্ড কমপক্ষে ৮ ডিজিটের হতে হবে।

যদি Username Already Exists ইউজারনেম ইতোমধ্যে ব্যবহৃত হয়েছে এমন সমস্যা দেখায়, ইউজারনেম পরিবর্তন করে পুনরায় চেষ্টা করুন।



কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

এখন আপনার তথ্য আপডেট করতে হবে তারজন্য আপনাকে "বিস্তারিত প্রফাইলে" যেতে হবে।


কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

এখন "এডিট " বাটনে ক্লিক করে ব্যাক্তিগত তথ্য প্রদান করুন।


কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?


সব  তথ্য দেওয়া হলে "পরবর্তী" ধাপে যান।
কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

নিচের ধাপে অন্যান্য তথ্য দিয়ে "পরবর্তী" ধাপ চাপুন।

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

নিচের ধাপে আপনার ঠিকানা প্রদান করুন অথ্যাৎ আপনি কোন ঠিকানায় ভোটার হবেন সেটি সিলেক্ট করুন এবং এই ধাপের নিচের ভোটার এরিয়াটা বুঝেশুনে সঠিকভাবে সিলেক্ট করুন।

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

নিচের ধাপে কোন কাগজপত্রের প্রয়োজন নেই বিধায় "পরবর্তী" ধাপে চাপুন।

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

সবশেষে এপ্লিকেশন টি সাবমিট করুন


কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

এপ্লিকেশন সাবমিট করার পর নিচের মত দেখাবে যে "আপনার একটি এপ্লিকেশন পেন্ডিং রয়েছে"।  এখন কতৃপক্ষ  আপনার আবেদন টি ভেরিফাই করে সব সঠিক থাকলে প্রফাইলে বা উক্ত নাম্বারে মেসেজ এর মাধ্যমে বায়োমেট্রিক এর তারিখ জানিয়ে দিবে।


কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

নিবন্ধন ফরম টি ডাওনলোড করতে নিচে দেখানো ডাওনলোড বাটনে ক্লিক করুন।

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?


ডাওনলোড করার পর ফরম টি যেমন হবেঃ
কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?

কিভাবে নতুন নিয়মে অনলাইনে  জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করবো?


ব্যস, আপনার আবেদন প্রক্রিয়া শেষ।

 ভেরিফিকেশনঃ
আপনার আবেদনটি উপজেলা বা জেলা নির্বাচন অফিস যাচাই বাছাই করবে। যাচাই করার জন্য আপনার সাথে তারা যোগাযোগ করতে পারে।

বায়োমেট্রিক প্রদানঃ

আবেদনটি যাচাই শেষে আপনার ছবি ও আঙ্গুলের ছাপ (Biometric Information) নেয়ার জন্য ডাকা হবে।

এর ১৫ থেকে ২০ দিন পরে আপনার আবেদনটি অনুমোদিত হলেই আপনি অনলাইন হতে জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করতে পারবেন।



কিভাবে জাতীয় পরিচয় পত্রের অনলাইন কপি ডাওনলোড করবেন?

আপনার আবেদনটি অনুমোদিত হলে, আপনার দেয়া মোবাইল নম্বরে মেসেজ এর  মাধ্যমে জানিয়ে দিবে।


আপনার আবেদনটির সর্বশেষ অবস্থা প্রফাইলের ড্যাশবোর্ড থেকে দেখতে পারবেন।


আবেদনটি অনুমোদিত হলে, ড্যাশবোর্ড এর ডান পাশ থেকে ডাউনলোড অপশনে ক্লিক করে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র বা ন্যাশনাল আইডি কার্ড এর অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন।

নিচের লেখাগুলো মোবাইল ডিভাইসে পড়তে সমস্যা হলে ডেক্সটপ মোড অন (Desktop  Mode On)করে নিন।alert-warning





জাতীয় পরিচয়পত্র ও নিবন্ধন সংক্রান্ত জিজ্ঞাসাঃ
১। প্রশ্নঃ আমি যথা সময়ে ভোটার হিসেবে রেজিস্ট্রেশন করতে পারিনি। এখন কি করা যাবে?

উত্তরঃ আপনি যে কোন সময়ে রেজিস্ট্রেশনের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।


২। প্রশ্নঃ আমি বিদেশে অবস্থানের কারণে ভোটার রেজিস্ট্রেশন করতে পারিনি, এখন কিভাবে করতে পারবো?

উত্তরঃ আপনি যে কোন সময়ে রেজিস্ট্রেশনের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।


৩। প্রশ্নঃ আমি ২০০৭/২০০৮ অথবা ২০০৯/২০১০ সালে ভোটার রেজিস্ট্রেশন করেছি কিন্তু সেই সময় আইডি কার্ড গ্রহণ করিনি। এখন কিভাবে আইডি কার্ড পেতে পারি?

উত্তরঃ উপজেলা/থানা নির্বাচন অফিস থেকে আপনার কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন। যদি সেখানেও না পাওয়া যায় তাহলে অনলাইনে রিইস্যু করার জন্য আবেদন করতে পারবেন। আবেদন অনুমোদিত হওয়ার পর আপনার মোবাইলে এসএমএস পাঠানো হবে। এরপর অনলাইন থেকে আপনার এনআইডি কার্ড এর কপি ডাউনলোড করে নিন।


৪। প্রশ্নঃ ভোটার তালিকার নামের সাথে বিভিন্ন খেতাব, পেশা, ধর্মীয় উপাধি, পদবী ইত্যাদি যুক্ত করা যাবে কিনা?

উত্তরঃ ভোটার তালিকার ডাটাবেজে শুধুমাত্র নাম সংযুক্ত করা হয়, কোন উপাধি বা অর্জিত পদবী তাতে সংযুক্ত করার অবকাশ নাই।


৫। প্রশ্নঃ কোথা হতে আইডি কার্ড সংগ্রহ করা যাবে?

উত্তরঃ অনলাইন থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন অথবা যে এলাকায় ভোটার রেজিস্ট্রেশন করেছেন সেই এলাকার উপজেলা/থানা নির্বাচন অফিস থেকে আইডি কার্ড সংগ্রহ করা যাবে।


৬। প্রশ্নঃ আমি বিদেশে চলে যাব। আমার কার্ড কি অন্য কেউ উত্তোলন করতে পারবে?

উত্তরঃ অনলাইন থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।


৭। প্রশ্নঃ কার্ডে ইচ্ছাকৃত ভুল তথ্য দিলে কি হবে?

উত্তরঃ জেল বা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দণ্ডিত হতে পারে।


৮। জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর ১৩ আবার কারো ১৭ কেন?

উত্তরঃ ২০০৮ এর পরে যত আইডি কার্ড প্রিন্ট করা হচ্ছে বা পুণঃ তৈরি হচ্ছে সে সকল কার্ডের নম্বর ১৭ ডিজিট হয়ে থাকে।


৯। প্রশ্নঃ বিভিন্ন দলিলে আমার বিভিন্ন বয়স/নাম আছে। কোনটা ভোটার রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে?

উত্তরঃ এসএসসি অথবা সমমানের পরীক্ষার সনদে উল্লেখিত বয়স ও নাম। ভবিষ্যতে ৫ম/৮ম সমাপনী পরীক্ষার সনদ ও গ্রহণযোগ্য হবে। লেখাপড়া না জানা থাকলে জন্ম সনদ,পাসপোর্ট,ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়ে ও আবেদন করা যাবে।


১০। প্রশ্নঃ আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে কি ডুপ্লিকেট এন্ট্রি সনাক্ত করা সম্ভব?

উত্তরঃ হ্যাঁ, সনাক্ত করা সম্ভব।


১১। প্রশ্নঃ এক ব্যক্তির পক্ষে কি একাধিক নামে ও বয়সে একাধিক কার্ড পাওয়া সম্ভব?

উত্তরঃ না। একজন একটি মাত্র কার্ড করতে পারবেন। তথ্য গোপন করে একাধিক স্থানে ভোটার হলে কেন্দ্রীয় সার্ভারে আঙুলের ছাপ দ্বারা তা ধরা পড়বে এবং তার বিরুদ্ধে মামলা হবে।


১২। প্রশ্নঃ নতুন ভোটার হওয়ার ক্ষেত্রে কি কি কাগজ পত্রাদি প্রয়োজন?

উত্তরঃ জন্ম নিবন্ধন সনদ, এস.এস.সি বা সমমানের পরীক্ষা পাসের সনদ (যদি থাকে), ঠিকানা প্রমাণের জন্য কোন ইউটিলিটি বিলের কপি, নাগরিক সনদ, বাবা-মা এবং বিবাহিত হলে স্বামী/স্ত্রীর এনআইডি কার্ডের ফটোকপি, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স, টিআইএন (TIN) নম্বর (যদি থাকে)।


১৩। প্রশ্নঃ আমি খুব দরিদ্র ও বয়স ১৮ বছরের কম। ১৮ বছরের উপরে বয়স দেখিয়ে একটি আইডি কার্ড পেলে গার্মেন্টেস ফ্যাক্টরিতে বা অন্য কোথাও চাকুরী পেতে পারি। মানবিক কারণে এই পরিস্থিতি বিবেচনা করা যায় কি?

উত্তরঃ না। ১৮ বছর বয়স পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। মানবিক বিবেচনার কোন সুযোগ নেই।


১৪। প্রশ্নঃ আমি ভুলে দু’বার রেজিস্ট্রেশন করে ফেলেছি এখন কি করবো?

উত্তরঃ যত দ্রুত সম্ভব বিষয়টি সংশ্লিষ্ট জেলা নির্বাচন অফিসে লিখিতভাবে ক্ষমা প্রার্থনা জানান। বর্তমানে Finger Print Matching কার্যক্রম চলছে। অচিরেই সকল Duplicate Entry সনাক্ত করা হবে। উল্লেখ্য, যা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।


১৫। প্রশ্নঃ আইডি কার্ড আছে কিন্তু ২০০৮ এর সংসদ নির্বাচনের সময় ভোটার তালিকায় নাম ছিল না। এরূপ সমস্যা সমাধানের উপায় কি?

উত্তরঃ অবিলম্বে এনআইডি রেজিস্ট্রেশন উইং/উপজেলা/জেলা নির্বাচন অফিসে যোগাযোগ করুন।


১৬। প্রশ্নঃ একজনের কার্ড অন্যজন সংগ্রহ করতে পারবে কিনা?

উত্তরঃ অনলাইন থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।


১৭। প্রশ্নঃ আপনারা বিভিন্ন ফর্মের কথা বলেছেন? এগুলো কোথায় পাওয়া যাবে?

উত্তরঃ এখন সব আবেদন অনলাইনে করতে পারবেন এবং আবেদনের ধরন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ফর্ম অনলাইনে থেকেই সংগ্রহ করতে পারবেন।


১৮। প্রশ্নঃ এই সমস্ত ফর্মের জন্য কোন মূল্য পরিশোধ করতে হয় কি না?

উত্তরঃ না।



Post a Comment

Previous Post Next Post